২০০ কিমি পথ হেঁটে এসে মিলল না গ্রামে ঢোকার অনুমতি, ১৪ দিন গাছের মাথায় কাটালেন পরযায়ী শ্রমিক


Odd বাংলা ডেস্ক: লকডাউনের মধ্যে রাজস্থানের আজমীর জেলা থেকে ভিলওয়াড়ায় নিজের গ্রামের দিকে প্রায় ২০০ কিলোমিটার পথ পায়ে হেঁটে অতিক্রম করছেন বছর ২৪-এর পরিযায়ী শ্রমিক কমলেশ মীনা। কিন্তু তারপরেও বাড়ি ফেরা হয়নি। নিজেকে সেল্ফ কোয়ারেন্টাইন করে রাখতে গাছের মাথায় মাচা বেঁধে ১৪দিন কাটাল ওই যুবক। 

দ্বিতীয় দফা লকডাউন শুরু হওয়ার পরের দিনই সে তাঁর নিজের গ্রাম শেরপুরায় এসে পৌঁছেছিল পায়ে হেঁটে। কিন্তু গ্রামবাসীরা তাঁকে গ্রামে ঢুকতে বাধা দেয়। গ্রামবাসীদের মনে ভয় ছিল যে, সে যদি করোনা সংক্রমণ বয়ে আনে, তাহলে তা ছড়িয়ে পড়তে পারে সারা গ্রামে। এরপর কমিউনিটি হেলথ সেন্টার থেকে স্বাস্থ্যকর্মীরা এসে তাঁকে বলেন ১৪ দিনের সেল্ফ কোয়ারেন্টাইনে যেতে। 

কিন্তু গ্রামবাসীরা তাকে বাড়ি থেকে কিছুটা দূরত্বে একটি মাঠে থাকার কথা বলেন। এরপর কমলেশ মীনার পরিবার এবং গ্রামবাসীর সহযোগীতায় গাছের ওপর মাচা বানিয়ে তাঁর জন্য জল খাবার এবং অন্যান্য নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিস দিয়ে থাকার ব্যবস্থা করে দেওয়া হয়। কমলেশের ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইনের মেয়াদ শেষ হয়। তারপর তাঁকে আবার টেস্ট করেন স্বাস্থ্যকর্মীরা, এরপর তাঁকে বাড়ির লোকেদের সঙ্গে থাকার অনুমতি দেওয়া হয়।
২০০ কিমি পথ হেঁটে এসে মিলল না গ্রামে ঢোকার অনুমতি, ১৪ দিন গাছের মাথায় কাটালেন পরযায়ী শ্রমিক ২০০ কিমি পথ হেঁটে এসে মিলল না গ্রামে ঢোকার অনুমতি, ১৪ দিন গাছের মাথায় কাটালেন পরযায়ী শ্রমিক Reviewed by Odd Creator on May 05, 2020 Rating: 5
Powered by Blogger.